My Blog My World

Collection of Online Publications

রবার্ট ফিস্ক : দুবাইয়ে মোসাদের গোপন চক্রান্ত

নিবন্ধটি ১৮ ফেব্রুয়ারি দৈনিক কালের কণ্ঠে প্রকাশিত হয়েছে।

মূল নিবন্ধ : রবার্ট ফিস্ক

এ এক রটনা যুদ্ধ। দুবাইয়ে হামাস কর্মকর্তাকে কে হত্যা করল? আমি অকপটে বলব, এটা ইসরায়েলি এবং ফিলিস্তিনিদের পুরনো ও নোংরা যুদ্ধ। কয়েক দশক ধরেই তারা প্রতিপরে গোয়েন্দা পুলিশদের হত্যা করছে। তবে ওই পাসপোর্টগুলো কার ছিল? পাসপোর্ট নিয়ে আমাদের আলোচনায় বাস্তবতার প্রতিফলন ঘটবে।

দুবাইয়ের বাসিন্দাদের মধ্যে অনেকেই বিশ্বাস করেন, পশ্চিমা ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো আমিরাতের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নিয়েছে বলেই গত বছর আমিরাতের অর্থনীতিতে ধস নেমেছে। যুক্তরাষ্ট্র ও তার ইসরায়েলি মিত্র এবং ইরানের মধ্যে উষ্ণ-শীতল যুদ্ধের সময় তেহরানের বিরুদ্ধে যখন অবরোধ, নিষেধাজ্ঞার খড়গ ঝুলছে, তখন দুবাই কর্তৃপক্ষ ব্যবসা-বাণিজ্যের জন্য ইরানি সেল কম্পানিগুলোকে তার ভূখণ্ড ও সীমানা ব্যবহার করতে দিয়েছে। নিঃসন্দেহে আমেরিকা দুবাইকে এর শাস্তি দিয়েছে। এখন আমেরিকা (অথবা ইসরায়েল, আপনারা যে যা মনে করেন) দুবাইকে উপসাগরীয় এলাকার বৈরুত বানাতে চায়। বস্তুত গত সপ্তাহে দ্য জেরুজালেম পোস্টের একটি শিরোনাম ছিল এটি। প্রতিবেদনে বর্তমানে অর্থনৈতিকভাবে বিপর্যস্ত দুবাইকে বিপজ্জনক হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে।

দুবাইয়ের একটি ‘সূত্র’র উদ্ধৃতি দিয়ে দ্য ইন্ডিপেনডেন্টে প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, যুক্তরাজ্যের একটি পাসপোর্টের ব্যাপারে সন্দেহ দেখা দিলে দুবাইয়ের নিরাপত্তা কর্মকর্তারা দুবাইয়ে একজন ‘ব্রিটিশ কূটনীতিক’কে ওই পাসপোর্টের বিষয়ে বিস্তারিত অবহিত করেছিলেন। তবে নিরাপত্তা কর্মকর্তারা ‘যথার্থ উত্তর পাননি’। ধারণা করা হচ্ছে পাসপোর্টটি জাল। আর তা ব্যবহারের অভিযোগ যদি সত্য হয়ে থাকে, তবে ব্রিটিশ সরকার কেন তাৎক্ষণিকভাবে এ ব্যাপারে উদ্বেগ জানাল না? এর ফলে যুক্তরাজ্যের সব পাসপোর্টের ব্যাপারেই সন্দেহ দেখা দেবে।

ব্রিটিশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তার নাগরিকদের মধ্যপ্রাচ্যে সম্ভাব্য বিপদের ব্যাপারে সতর্ক করতে আগ্রহী। তবে জাল পাসপোর্টের ব্যাপারে ন্যূনতম উদ্বেগটুকুও না জানিয়ে তারা সব ব্রিটিশ নাগরিককেই বিপদের মুখে ঠেলে দিয়েছে। আমি দুঃখিত। তাদের কাছে বিস্তারিত তথ্য থাকলে ব্রিটিশ জনগণকে তা অবগত করাও তাদের দায়িত্ব। আর বিস্তারিত তথ্য না থাকলে সে বিষয়েও আমাদের জানানো দরকার। কিন্তু তারা নীরব। কেন? বন্ধ দরজার আড়ালে কি শীতল হাওয়া বইছে?

‘সন্ত্রাসবাদ’ সম্পর্কে জানতে পুলিশ বাহিনীর অনেক সদস্যকে এখন ইসরায়েল পাঠানো হচ্ছে। কানাডিয়ানরা একদল পুলিশ সদস্যকে তেল আবিব পাঠিয়েছে। ওই সদস্যরা প্রচারণার জন্য নিজেরাই ‘আত্নঘাতী পোশাক’ পরেছেন। এয়ার ফ্রান্স এখন তার সব যাত্রীর তথ্য যুক্তরাষ্ট্রকে সরবরাহ করে। ইসরায়েলি নিরাপত্তা কর্মকর্তারা (মধ্যপ্রাচ্যের কয়েক শ আরব নিরাপত্তা কর্মকর্তার মতো) যুদ্ধাপরাধের সঙ্গে প্রত্যভাবে জড়িত থাকতে পারেন- এমন সম্ভাবনা থাকার পরও যাত্রীদের তথ্য সন্দেহাতীতভাবে ইসরায়েলের কাছে পৌঁছে যায়।

এবার আমি একটি ছোট বিষয় সংযোজন করছি। মনে হচ্ছে, দুবাই কর্তৃপ ডাবলিনকে এখনো যুক্তরাজ্যের অন্যতম বড় নগরী মনে করছে। এ কারণেই তারা হয়তো কথিত ব্রিটিশ নাগরিককে কথিত জাল আইরিশ পাসপোর্ট ফেরত দিয়েছে। আজ এ কথা বলার প্রয়োজন নেই যে প্রায় ১০০ বছর আগে ডাবলিনে পরিবর্তন এসেছে। দুবাইয়ে ব্রিটিশ শাসনের অবসানের তারিখ কয়জনের মনে আছে? এ ধরনের ভুলে যাওয়ার কারণে হতাশাজনক আরো অনেক কিছু ঘটতে পারে। বিদেশে হত্যাকারীদের বিরুদ্ধে যখন ব্রিটিশ পাসপোর্ট ব্যবহারের অভিযোগ ওঠে, তখন গর্ডন ব্রাউন, আমরা বা ব্রিটিশ নাগরিকদের মধ্যে কি কোনো প্রতিক্রিয়া হয় না? এ প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার সময় এখনো আসেনি। তবে আমার আজ বলা উচিত, দুবাই কর্তৃপক্ষের কাছে এমন আরো অনেক তথ্য আছে, যা তারা প্রকাশ করেনি। বিশ্ব সেসব অপ্রকাশিত তথ্য জানার অপোয় আছে।

লেখক: ব্রিটিশ পত্রিকা দ্য ইন্ডিপেনডেন্টের মধ্যপ্রাচ্যবিষয়ক সংবাদদাতা

ভাষান্তর: মেহেদী হাসান

Advertisements

February 17, 2010 - Posted by | Business, Foreign Affairs, Peace | , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , ,

No comments yet.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: